সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৩:১৩ অপরাহ্ন

সর্বোশেষ:
সহবাসের জন্য মাসিক বন্ধ করার বিধান কি? পুরুষদের হাতে মেহেদী দেওয়া! হস্তমৈথুনকারীর উপর গোসল ফরয নয়? যৌনি পথে বীর্যপাত না হলে গোসল করতে হবে না? পাকা ফ্লোর পবিত্র করার নিয়ম ঋতুস্রাব মনে করে নামায ছেড়ে দেওয়া কমিউনিটি সেন্টারে বিয়ে কি বৈধ? জন্মবার্ষিকী কি শিরক? স্ত্রীর অনুমতি ছাড়া সফর বৈধ নয় কেন? হযরত ঈসা আ.কে অবৈধ সন্তান বলা মাহরামের সাথে বিয়ে অবৈধ হওয়ার রহস্য বাসর রাতে নববধূর সহবসে বারণ বিড়ি সিগারেট সেবন করা কি বৈধ? জবেহকৃত পশুর কোন কোন অংশ খাওয়া হারাম? একাধিক স্ত্রীর সাথে সহবাস কিভাবে করবে? ইসলামে কি পীর মুরিদ আছে? লা-মাযহাবীর পিছনে নামায পড়া পশ্চাদ দিক হতে স্ত্রীর যৌনাঙ্গে সহবাস করা খতনা উপলক্ষে অনুষ্ঠান করা কি বৈধ? অহংকার

বিড়ি সিগারেট সেবন করা কি বৈধ?

আলী হাসান

ওয়েব থেকে।

জিজ্ঞাসাঃ বিড়ি, সিগারেট, ইয়াবা, ইত্যাদি নেশা জাতীয় দ্রব্য সেবন করার হুকুম কি? এ জাতীয় দ্রব্য সেবন করলে কি ব্যক্তি কোন শাস্তি যোগ্য হবে কিনা?  এগুলো যে সেবন করে তার ইবাদত-বন্দেগী, দুআ কি কবুল হবে? বিস্তারিত জানালে উপকৃত হবো।

সমাধানঃ যদি কোন ব্যক্তি মদ পান করার কারণে মাতাল হয়,  বা এমন বস্তু সেবন করার কারণে ব্যক্তি মাতাল হয়, তা হলে এমন বস্তু খাওয়া হারাম। এমন ব্যস্তু সেবনকারীর হুকুম হলো; ইসলামী রাষ্ট্রব্যবস্থা থাকলে এবং যদি তা রাষ্ট্র নিযুক্ত বিচারকের সামনে তা প্রমাণিত হয়, তা হলে তার নির্দেশে আশি বেত্রাঘাতের শাস্তি প্রয়োগ করা হবে। যেহেতু আমাদের দেশে ইসলামী শাসন নেই কাজেই ব্যক্তিকে মৃত্যুর আগে তওবা করতে হবে। তাওবা না করলে, আখেরাতে কঠিন শাস্তির উপযোক্ত হবে।

পক্ষান্তরে বিড়ি সিগারেট যেহেতু ব্যক্তিকে মাতাল করে না। আর তা মাতাল হবার জন্য খাওয়া হয় না। সেই সাথে এতে এমন কোন পরিমাণ বস্তুও নেই যে, যা সেবন করলে ব্যক্তি মাতাল হয়ে পড়বে।

তাই সিগারেট খাওয়া হারাম নয়। বরং তা মাকরূহ। দুর্গন্ধ এবং ক্ষতিকর হবার কারণে। দেখুন-

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِنَّمَا الْخَمْرُ وَالْمَيْسِرُ وَالْأَنصَابُ وَالْأَزْلَامُ رِجْسٌ مِّنْ عَمَلِ الشَّيْطَانِ فَاجْتَنِبُوهُ لَعَلَّكُمْ تُفْلِحُونَ ٥:٩٠

“হে মুমিনগণ,এই যে মদ,জুয়া,প্রতিমা এবং ভাগ্য-নির্ধারক শরসমূহ এসব শয়তানের অপবিত্র কার্য বৈ তো নয়। অতএব, এগুলো থেকে বেঁচে থাক-যাতে তোমরা কল্যাণপ্রাপ্ত হও।” সূরা মায়িদা-৯০

عَنِ ابْنِ عُمَرَ، قَالَ: وَلَا أَعْلَمُهُ إِلَّا عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، قَالَ: «كُلُّ مُسْكِرٍ خَمْرٌ، وَكُلُّ خَمْرٍ حَرَامٌ

হযরত আব্দুল্লাহ বিন উমর রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, প্রতিটি মাতাল করে দেয়া বস্তুই মদ। আর প্রতিটি মদই হারাম। সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-২০০৩

عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ، «أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أُتِيَ بِرَجُلٍ قَدْ شَرِبَ الْخَمْرَ، فَجَلَدَهُ بِجَرِيدَتَيْنِ نَحْوَ أَرْبَعِينَ»، قَالَ: وَفَعَلَهُ أَبُو بَكْرٍ، فَلَمَّا كَانَ عُمَرُ اسْتَشَارَ النَّاسَ، فَقَالَ عَبْدُ الرَّحْمَنِ: أَخَفَّ الْحُدُودِ ثَمَانِينَ، «فَأَمَرَ بِهِ عُمَرُ»،

হযরত আনাস বিন মালেক রাঃ থেকে বর্ণিত। নিশ্চয় রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে মাদ পান করা এক ব্যক্তি আসল। তখন তাকে খেজুর গাছের দু’টি ডাল দিয়ে চল্লিশ বেত্রাঘাত করা হয়।[এক বেতে চল্লিশ হলে, দুই বেতের দ্বারা হচ্ছে আশি] একই পদ্ধতিতে আবু বকর রাঃ ও এ অপরাধের শাস্তি দিতেন। তারপর যখন হযরত উমর রাঃ এর সময় আসল। তিনি লোকদের সাথে এ বিষয়ে পরামর্শ করলেন। তখন আব্দুর রহমান পরামর্শ দিলেন যে, কমপক্ষে আশি বেত্রাঘাত। [দুই ডাল একসাথে নয়, বরং আলাদা করে আশিটি] তখন হযরত উমর রাঃ আশিটি বেত্রাঘাতের হুকুম দিলেন। সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-১৭০৬

والله اعلم بالصواب

অনুগ্রহ করে প্রচারের জন্য শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Muftimahbub.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com