বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ০৮:১৮ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ :
যে কারণে প্রতিদিন কুরআন মাজীদ পড়া উচিত আল্লাহ তাআলা বলা হারাম! যে দিন সহবাস নিষেধ! কুকুর দ্বারা কি শিকার করানো যায়? খতনা উপলক্ষে অনুষ্ঠান করা কি বৈধ? ওযুর পর বাচ্চাকে দুধ পান করানো কি নিষেধ? Veet বা ম‌েডিসিন দ্বারা গোপন লোম পরিষ্কার করা প্রসঙ্গে ন্যায়ের বিষয়ে আপোষহীনতা সৎ খালাকে বিয়ে করা কি বৈধ? অসম্পূর্ণ বাচ্চা প্রশবের পর রক্তঃস্রাব বস্ত্রহীন অবস্থায় সহবাস বিয়েতে যে ৫টি কাজ করা যাবে না স্ত্রীর যৌনাঙ্গে বীর্যপাত না হলে কী গোসল ফরজ হয় না? শারিরিক সম্পর্কের পর বিয়ে সিক্স প্যাক বিতর্ক : দাম্ভিকতার ভয়াবহ প্রদর্শন বিড়ি সিগারেট খাওয়া শালীর সাথে শারিরিক সম্পর্কের কারণে স্ত্রী তালাক হয়ে যায়? পান ও জর্দা খাওয়া কেমন? স্ত্রীর মাসিক চলাকালীন সময় কনডম বা অন্যাপায়ে সহবাস শরীয়তে কুলখানী কি বৈধ?

খতনা উপলক্ষে অনুষ্ঠান করা কি বৈধ?

সাজিদা আক্তার

মহাখালি, ঢাকা।

জিজ্ঞাসাঃ আজকাল দেখা যায় আকীকা বা খতনা উপলক্ষ্যে বিশাল অনুষ্ঠান করা হয়। আত্মীয়-স্বজনকে দাওয়াত দেয়া হয়, কার্ড ছাপানো হয়, আর ধনী হলে তো কথাই নেই; এ উপলক্ষ্যে লাখ লাখ টাকা ব্যয় করে থাকে। এব্যাপারে শরীআতের নির্দেশনা কেমন?

 

সমাধানঃ খতনা উপলক্ষ্য করে লোকদের দাওয়াত দেয়ার অনুমতি ইসলামে নেই। এটি একটি বিদআত কাজ। হযরত উসমান ইবনুল আস রাযি.-কে জনৈক ব্যক্তি খতনার দাওয়াত দিলে তিনি সেখানে যেতে অস্বীকৃতি জানালেন এব বললেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের যুগে এ ধরণের কোন অনুষ্ঠানের অস্তিত্ব ছিল না।

আকীকা ও খতনা উপলক্ষ্যে আমাদের সমাজে যেসব বাহুল্যতার ছড়াছড়ি শুরু হয়েছে, এগুলো হচ্ছে ইসলাম সম্পর্কে অজ্ঞতার কুফল। শরীআত যে জিনিসকে সহজ করে দিয়েছে আমরা নিজেরা তা কঠিন করে ফেলেছি। আসল সুন্নতকে বর্জন করে মনগড়া কর্মকান্ড শুরু করেছি। সন্তান জন্মের সপ্তম দিনে আকীকা করা মুস্তাহাব। কিন্তু জমকালো অনুষ্ঠান করার মানসে সপ্তম দিনে অনেকে আকীকা না করে সুবিধামত সময়ে করে থাকে। এতে আকীকার যে মূল উদ্দেশ্য তা ব্যহত হয়। এই জন্য এসব ক্ষেত্রে লৌকিকতার আশ্রয় না নিয়ে মূল সুন্নত বা মুস্তাহাবকে পালন করার চেষ্টা করতে হবে।

খতনার বিষয়টিও ঠিক এরকম। এটি কোন অনুষ্ঠানের বিষয় নয়। উপযুক্ত সময়ে সন্তানের খতনা করতে হবে। এখানে অনুষ্ঠান করা বা আত্মীয়-স্বজনকে সমবেত করে ভোজের ব্যবস্থা করার কি আছে? এটি একটি অনর্থক কাজ এবং সুন্নত পরিপন্থী।

আজকাল তো এসব অনুষ্ঠানে অনেক শরীআত বিরোধী কর্মকাণ্ড যুক্ত হয়ে গেছে। অনেক জায়গায় এই অনুষ্ঠানে জন্য মুসলমানীতে দেরী করা হয়। ইতিমধ্যে ছেলে এতো বড় হয়ে যায় যে, তার গুপ্তাঙ্গ দেখা তখন হারাম হয়ে যায়। তাই এসব অনুষ্ঠান বর্জন করে যথাসময়ে খতনার সুন্নত আদায় করা জরুরী।

আরও বিস্তারিত জানতে দেখুন- ইমদাদুল মুফতীন ১২১

 

উত্তর লিখনে-

মুফতী মাহবুব হাসান

মুহাদ্দিস-মাদরাসায়ে হালিমাতুস সাদিয়া রা. ঢাকা।

মাদরাসায়ে খাতুনে জান্নাত রা. ঢাকা।

সোশ্যাল সাইটে শেয়ার করুন বন্ধুর সাথে...

Leave a Reply

Your e-mail address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017-2018 Muftimahbub.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
ইসলামী জিজ্ঞাসা
 
জিজ্ঞাসা
 
ইসলামী জিজ্ঞাসা
+